শৈলী বাহক

কবি জন মিলটন এর জীবনী

Decrease Font Size Increase Font Size Text Size Print This Page

বিশ্বসাহিত্যের শ্রেষ্ঠ কবিদের একজন। ইংরেজি সাহিত্যে শেক্সপিয়ারের পরেই জন মিলটন এর স্থান। তার কালজয়ী মহাকাব্য ‘প্যারাডাইস লস্ট’-এর জন্য তিনি অমর হয়ে আছেন।

১৬০৮ সালের ৯ ডিসেম্বর মিলটন লন্ডনে জন্মগ্রহণ করেন। তার পূর্বপুরুষরা ছিলেন রোমান ক্যাথলিক। পিতা জন মিলটন সিনিয়র কিন্তু প্রোটেস্ট্যান্ট ধর্মমত গ্রহণ করে পরিবার থেকে আলাদা হয়ে যান।
স্কুলের ছাত্র থাকাকালে মিলটন নিয়মিত পড়াশোনার পাশাপাশি লাতিন, গ্রিক, হিব্রু ভাষা ও সাহিত্য অধ্যয়ন করেন। সে সঙ্গে কাব্যচর্চাও শুরু করেন। ১৬২৬ সালে কলেজে পড়ার সময় তার প্রথম কবিতা প্রকাশিত হয়।

১৬৩৮ সালে মিলটন ইউরোপ ভ্রমণে বের হন। তৎকালীন ইউরোপের শিল্প-সাহিত্যের কেন্দ্রবিন্দু ইতালিতে কয়েক মাস কাটিয়ে তিনি ১৬৩৯ সালের জুলাইয়ে ইংল্যান্ডে ফিরে আসেন এবং লন্ডনে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে থাকেন। ১৬৪৩ সালে তিনি ম্যারি পাওয়েল নামে এক মহিলার সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। কিন্তু তার এ বিয়ে সুখের হয়নি।

১৬৪২ সালে পার্লামেন্ট এবং রাজার মতবিরোধের কারণে ইংল্যান্ডে গৃহযুদ্ধ শুরু হলে মিলটন পার্লামেন্টের সমর্থনে গদ্য রচনা শুরু করেন। এ সময় সংবাদপত্রের স্বাধীনতা বিষয়ে লিখিত তার Areopagitica (১৬৪৪) গ্রন্থটি বিশেষ আলোড়ন সৃষ্টি করে। গৃহযুদ্ধের পর ইংল্যান্ডের রাজা প্রথম চার্লসকে মৃত্যুদন্ড- দেয়া হলে মিলটন এর আলোকে The Tenure of Kings and Magistrates (১৬৪৯) শিরোনামে বিখ্যাত রাজনৈতিক পুস্তিকাটি রচনা করেন। এতে রাজার করুণ পরিণতির কথা তুলে ধরে তিনি বলেন জনগণই দেশের সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী।
এরপর ক্রমওয়েল কাউন্সিল অফ স্টেটের পক্ষ থেকে মিলটন দেশের বিদেশি ভাষাবিষয়ক সচিব নিযুক্ত হন। ১৬৫১ সালে তিনি কমনওয়েলথ নিউজপেপার কর্তৃক প্রকাশিত Mercurius Polilicus পত্রিকার প্রধান সম্পাদক পদে যোগ দেন। কিন্তু তখন থেকে কঠোর কর্তব্যপরায়ণতার কারণে অত্যধিক পরিশ্রম করার ফলে তার দৃষ্টিশক্তি ক্ষীণ হয়ে আসতে থাকে। তিনি ১৬৫২ সালে পুরোপুরি অন্ধ হয়ে যান।

দৃষ্টিশক্তি হারানোর পর মিলটন কিন্তু তার অন্ধত্বকে মেনে নেননি। সব প্রতিকূলতা তুচ্ছ করে তিনি সাহিত্যসাধনা চালিয়ে যেতে থাকেন। অবশেষে তার শ্রেষ্ঠ কাব্য ‘প্যারাডাইস লস্ট’ লেখা হয়। ১৬৫৮ সালে তিনি এই কাব্য রচনা শুরু করে ১৬৬৩ সালে শেষ করেন। ১৬৬৭ সালে এটি প্রথম গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হয়।

মিলটন ১৬৭৪ সালের ৮ নভেম্বর লন্ডনে মারা যান।

শৈলী.কম- মাতৃভাষা বাংলায় একটি উন্মুক্ত ও স্বাধীন মত প্রকাশের সুবিধা প্রদানকারী প্ল‍্যাটফর্ম এবং ম্যাগাজিন। এখানে ব্লগারদের প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর। ধন্যবাদ।


2 Responses to কবি জন মিলটন এর জীবনী

  1. touhidullah82@gmail.com'
    তৌহিদ উল্লাহ শাকিল ফেব্রুয়ারী 3, 2012 at 3:39 অপরাহ্ন

    এমন একটি লেখার জন্য শৈলী বাহককে অনেক ধন্যবাদ ।

  2. obibachok@hotmail.com'
    অবিবেচক দেবনাথ ফেব্রুয়ারী 8, 2012 at 4:05 পূর্বাহ্ন

    অসংখ্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা শৈলীকে, এমন মহান লোকদের সমন্ধে তথ্য প্রকাশ করে আমাদের জানার পরিধিকে বাড়ানোর জন্য।।

You must be logged in to post a comment Login