অদ্ভুদ খবর: নারীরা কবরেও নিরাপদ নয়!

নারীরা এখন কবরেও নিরাপদ নয়।

ধর্ষক যুবকের বয়স ২৬/২৭ বছর।  সে কবর স্থানে পানি দেয়ার কাজ করতো। সে ও তার আরেক সহকর্মী মিলে ৪৮ টি মৃত নারীকে কবর খুঁড়ে তুলে ধর্ষণ করেছিল।

যুবক ৪৮টি ধর্ষনের কথা সরাসরি স্বীকার করলেও, দেখা গেছে, সে এরপর এককভাবে আরো কিছু ধর্ষণ করে। যুবক এখানে কখনো দু’টো/তিনটে এমন সংখ্যা বলে।

যুবক নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাযও পড়ত। মানুষের এমন পৈশাচিক আচরনে হতবাক বা বিহবল কোনোটাই হওয়া যায়না। এমন ধরনের ঘৃণ্য কাজের কি শাস্তি হতে পারে তা অনুধাবনই নয়।

  • Facebook
  • Twitter
  • Share/Bookmark

10 Responses to অদ্ভুদ খবর: নারীরা কবরেও নিরাপদ নয়!

  1. তৌহিদ উল্লাহ শাকিল

    বি ডি নিউজ ২৪.কম ব্লগে দেখেছি । অতি পাষণ্ডের কাজ

  2. এ কী শোনালেন শাহেন শাহ! এতো বিকৃত রুচি!! নরাধম!!!

  3. নারাধম কিংবা পাষণ্ড বলার আমার একটু বলে নিতে হবে ,

    এই কমপ্লেক্সটাকে বলা হয় necrophilia /necrolagnia /thanatophilia …a pervertion in which sexual attraction to corpses !

    গ্রিক শব্দ nekros মানে dead আর philia মানে LOVE

    এটা একধরণের সাইকোসেক্সস্যুয়াল ডিসওডার হতে পারে ।

    সে ক্ষেত্রে শাস্তি কি হতে পারে সেই প্রশ্নের আগে আমার প্রশ্ন থাকবে লোকটি কি অসুস্থ ?

    ROSMEN এবং RESNICK
    ১৯৮৯ এ একটি থিসিসে এর কারণ ব্যাখ্যা করেন ,

    তার মর্মটা এমন ২টো কারণ হতে পারে
    ১. পরিত্যক্ত হয়ার ভয় , প্রেম নিবেদন করে পরিত্যক্ত হয়ার ভয়ে বা তিক্ত অভিজ্ঞতায় … প্রতিবাদহীন লাশের প্রতি আর্কষণ বাড়াতে পারে

    আরেকটা ব্যাপার হয় reaction formation , সহজ মানে হলো কিছু প্রতি খুব বেশি ভয় দিনে দিনে ভয়টাকে আর্কষণে রূপ দেয় । এদের অনেকের ক্ষেত্রে দেখা যায় এরা লাশাকে খুব ভয় পায় আর এই ভয়টা বিকৃত হয় এইধরণের আচরণে

    ২. আরেকটা হলো শুধুমাত্র ফেনটাসি

    এখন আমি করে নিশ্চিত যে এই লোকের ১ম কারণটি নেই । বিচারটা একজন সাইকিয়াট্রিসটই করুক

    দুটো কথা কিছুটা অসংগত মনে হলো ১. শিরোনামে বলা হচ্ছে নারীরা নিরাপদ নয় , কিন্তু এই কমপ্লেক্সটা নারীদেরও হতে পারে , উইকি থেকে একটা ছবি দিচ্ছি নিচে । দেখার আগে নাউযুবিল্লাহ পড়বেন না , ওটা একটা বিখ্যাত উপন্যাসের পৃষ্টা থেকে নেয়া

    ২. বলা হচ্ছে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়তো । এটা কেন বলা হলো । মুসলমান হলে নামাজ পড়বে এটাই বলার কী ! র্গিজার ফাদারের কি ক্যান্সার হতে পারে না ?

    কথাগুলো কে কিভাবে নিবে জানি না , আমি পড়াশোনা আমাকে শিখিয়েছে … আপরাধী নয় রোগী তোমার চিন্তার কারণ হোক

    • বিচারটা একজন সাইকিয়াট্রিসটই করুক

      এই কথার সাথে একমত নই।আপনি একজন ডঃ তাই রোগ হিসাবে বিবেচনা করলেন।সমাজকে নোংরামী আর এই ধরনের ভয়াবহ ব্যাপার থেকে পরিচ্ছন্ন রাখতে একে অবশ্যই অপরাধ হিসাবে বিবেচনা করা উচিত।শাস্তি শুধুই শাস্তি নয় এটা একটা দৃষ্টান্ত।তা না হলে মানবধীকারের ফাক গলে বেরিয়ে আসবে অনেক আসামী।আপনি একজন চোর একজন লোভী একজন খুনি এদের সব অপরাধীকে মানসিক সাস্থ্যের নিয়মে কোথাও না কোথাও অসুস্থ পাবেন।একজন চোর কে যদি ক্ষুদার্ত হিসাবে বিবেচনা করেন তাহলে তাকে ক্ষমা করে দেয়া মানবধর্ম হয়ে দাড়ায়।কিছু রোগকে অপরাধের চোখে দেখা উচিত।
      আপনি আপনার দিক থেকে ঠিক আর প্রসাশন ব্যবস্থা তার দিক থেকে।
      এই লোকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত যাতে অন্যেরা সংযত হয়।

  4. আপনার মন্তব্যের জন্য , কৃতজ্ঞ ।
    অপরাধ বলি আর অসুস্থতাই বলি , অস্পৃশ ভয়াণক বলে চুপ থাকা বোবার মুখোশ লাগিয়ে রাখার চেয়ে আমাদের মধ্যে চিন্তার ইচ্ছেটুকু মত প্রকাশের সত্‍ সাহসটুকু থাকাটা খুব দরকার । তাই আপনাকে সম্মান জানাই , এই সাহসটুকু সবার মধ্য থাকলে হয়তো দিনের পর দিন এতোগুলো দূর্ঘটনা হয়ার অগেই লোকটা সনাক্ত হলো , সনাক্ত হতো আশেপাশের আরো অনেক নিরব বির্পযয়গুলো ।

    হুম আমিই বলেছি বিচার সাইকিয়াট্টিক করুক , কিন্তু আমি বিচার বলতে লোকটার বিকৃত আচরণের কারণটা কি মানসিক অসুস্থতা … নাকি শুধুই ফেনটাসি ওটা বিচারের কথা বলতে চেয়েছি ।

    আপনি সর্তক নাগরিক হয়ে যতটুকু বলেছেন এর বাইরে দ্বিমত হয় না । আমি আমার জায়গা থেকে এইটুকুই বলতে চাচ্ছিলাম এটাকেও পুরুষতান্ত্রিক সমাজ একচেটিয়া গাল না দিয়ে , যদি সত্যিই অসুস্থ হয় তবে যেন আগে তার চিকিত্‍সা হয় তারপর শাস্তি … আর এরজন্য আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল মেডিক্যাল জুরিসপডেনসিতে নিশ্চয় সঠিক সিদ্ধান্তের নিয়ম করা আছে ।

  5. শাহেন শাহ ভাই, লেখাটা পড়ে ব্যাতিথ হলাম। তবে শিরোনাম আর উপস্থাপনা সাহিত্য আর শিল্প বিষয়ক ব্লগের সাথে মানানসই হয় নি। অন্য কোন ব্লগে লেখাটা গেলে আমার কিছু বলার ছিল। কারণ সে সব জায়গায় হয়তো, চটকদার শিরোনাম পাঠকদের আকৃষ্ট করে।
    শৈবাল, আপনার থেকে আমি নতুন বিষয় শিখলাম। ব্যাপারটা মাথায় রাখলাম। কখন কোন লেখায় ব্যাবহার করবো।
    রাবেয়া রব্বানি, আপনার কথাও ঠিক আছে। তবে আমারা যে কোন বিষয় অন্যদের থেকে আরেকটু গভীর ভাবে দেখতে পারি। যুক্তরাষ্ট্রে দেখি, insanity র কারণে শাস্তি কমিয়ে দেয়া হয়, মানসিক চিকিৎসা করা হয়। সে জন্যে বিচারের দায়িত্ব বিশেষজ্ঞদের হাতেই দেয়া ভাল। সবাইকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

    • কাজী হাসান , আপনিও এলেন তাই খুশী হয়েছি … বিনীত শ্রদ্ধা জানাই , আশা করি সবসময়ে
      থাকবেন এমনি করে , ছোট্ট এই শৈলার পরিবারের একজন হয়ে …

  6. আরো কত মনুষ্যত্ব বিকৃতি দেখতে হবে আমাদের??? এসব সত্যি দুঃখজনক।

Leave a Reply