মরুভূমির দেশে নারীর অধিকার

 

আরব দেশে নারী সবসময়ে অবহেলিত আর নিগৃহীত । সেই আরব দেশের নারীরা জেগেছে , ধীরে ধীরে তারা তাদের অধিকার আদায়ের জন্য আন্দোলন করেছে। সৌদি আরব ছাড়া অন্যান্য দেশে নারীরা তাদের অধিকার ফিরে পেয়েছে । সেখানে তারা পুরুষ’দের সাথে সমান্তরাল ভাবে কাজ করছে । দেশের অর্থনীতিতে ভুমিকা রাখছে বেশ। যেখানে পার্শ্ববর্তী দেশের নারী’রা তাদের ছাপিয়ে অনেক দূর চলে গেছে , সেখানে সৌদি নারী’রা চার দেয়ালের মাঝে আবদ্ধ  থেকে জীবন যাপন করছে।ঘর সংসার নিয়ে। কেউ কেউ পৈত্রিক সুত্রে প্রাপ্ত সম্পদের সঠিক ব্যাবহার করতে পারে না। একমাত্র নারীর ক্ষমতায়ন না থাকায়। একসময় নারী ঘরে বসে দিন কাটালে ও এখন আর তা করতে চায় না । নারী মহাকাশ থেকে শুরু করে সকল ক্ষেত্রে আজ সফল ।

সৌদি আরবে নারীরা তাদের অধিকারের কথা বলে আসছে বহুদিন ধরে । কিন্তু নানা প্রতিকূলতার জন্য তাদের সেই অধিকার দেওয়া হয় নাই । অবশেষে গত রবিবার সৌদি জাতীয় দিবসের দিন সেই দেশের রাষ্ট্রপতি বাদশা আবদুল্লাহ ঘোষণা দেন নারী অধিকারের।

প্রাথমিক ভাবে তাদের কে সেই দেশের সুরা কাউন্সিলের সদস্য করা হবে । ইসলামিক এবং শরীয়ার উপর ভিত্তি করে । অন্যদিকে সৌদি আরবের সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোটাধিকার এবং প্রয়োজনে প্রার্থিতা ও করতে পারবে। তবে এসবের জন্য শর্ত বেধে দিয়েছেন । আর তা হল সব কিছুই হবে ইস্লামিক শরিয়া ভিত্তিক ।

ওয়াঝা আল হায়দার একজন সৌদি লেখিকা তিনি খবর শুনে তার প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন ” অবশেষে নারী কণ্ঠ জয়ী হল”।

শুধু ওয়াজা আল হায়দার নয় শতশত নারী এরি মধ্যে ফেইসবুক এবং দৈনিক পত্রিকার কলামে তাদের আনন্দের কথা জানিয়েছেন উল্লাসিত হয়ে । এরফলে নারি অধিকার আদায়ে তারা অনেক এগিয়ে যাবেন । নারী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে তারা নিজেদের অধিকার সম্পর্কে সচেতন হবেন। আর এসব সকল কৃতিত্ত একমাত্র বাদশা আব্দুল্লাহর।

এক ব্যাবসায়ী নারী উল্লাসিত হয়ে বলেছেন ‘সমাজের বল্যে নারী পুরুষ সমান, আজকের এই ঘোষণা একটি পিরামিডের মত একটি ধাপ ,যে ধাপ বেয়ে নারী তার অধিকার আদায়ে সচেষ্ট হবে’

এখন আগামীতে কি হয় তা দেখার অপেক্ষা করে থাকতে হবে। যে নারীরা আরব দেশে অবহেলিত ছিল তারা কি পারবে তাদের সকল অধিকার আদায়ে , নাকি এই ঘোষণা আবার মুখথুবড়ে পড়ে থাকবে তা হল দেখার বিষয়। যে নারীরা এতদিন অনেকটা ঘুমিয়ে ছিল , এবার তারা জেগে উঠুক আপন শক্তিতে।   

 

  • Facebook
  • Twitter
  • Share/Bookmark

6 Responses to মরুভূমির দেশে নারীর অধিকার

  1. আশার আলো দেখছি। কতটুকু স্বাধীনতা ও সুফল ভোগ করতে পারবে তাই ভাবছি।
    শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

  2. খন্দকার নাহিদ হোসেন

    শাকিল ভাই, যেখানে যাই সেখানেই তো আপনাকে দেখছি! ঘটনা কি?! সংবাদটুকু শুনে ভালো লাগলো।

    • লেখা লেখি করতে যখন নেমেছি তখন তো দেখা হবেই বন্ধু । তুমি কেমন আছ । আশা রাখি কুশলে আছ। তোমার ভাল লেগেছে জেনে আমার নিজের ও ভাল লেগেছে

  3. সমস্তটা বুঝেশুনে মনে হচ্ছে— পাখির পায়ে সুঁতো বেঁধে উড়িয়ে দেওয়া, অন্যপ্রান্ত তো শক্ত খুঁটির সাথে বাঁধা।

Leave a Reply