শৈলী টাইপরাইটার

সুকুমার রায়ের “নতুন পণ্ডিত”

আগে যিনি আমাদের পণ্ডিত ছিলেন, তিনি লোক বড় ভালো। মাঝে মাঝে আমাদের যে ধমক-ধামক ন করিতেন, তাহা নয়, কিন্তু কখনও কাহাকেও অন্যায় শাস্তি দেন নাই। এমন কি ক্লাশে আমরা কত সময় গোল করিতাম, তিনি মাঝে মাঝে ‘আঃ’ বলিয়া ধমক দিতেন। তাঁর হাতে একটা ছড়ি থাকিত, খুব বেশি রাগ করিলেই সেই ছড়িটাকে টেবিলের উপর আছড়াইতেন— সেটিকে […]

 শৈলী টাইপরাইটার

নন্দলালের মন্দ কপাল — সুকুমার রায়

নন্দলালের ভারি রাগ, অঙ্কের পরীক্ষায় মাস্টার তাহাকে গোল্লা দিয়াছেন। সে যে খুব ভালো লিখিয়াছিল তাহা নয়, কিন্তু তা বলিয়া একেবারে গোল্লা দেওয়া কি উচিত ছিল? হাজার হোক সে একখানা পুরা খাতা লিখিয়াছিল তো ! তার পরিশ্রমের কি কোনো মূল্য নাই? ঐ যে ত্রৈরাশিকের অঙ্কটা, সেটা তো তার প্রায় ঠিক‌‌ই হ‌‌ইয়াছিল, কেবল একটুখানি হিসেবের ভুল হওয়া […]

 শৈলী টাইপরাইটার

সুকুমার রায়ের নাটক: “ঝালাপালা”

জুড়ির গান সখের প্রাণ গড়ের মাঠ পড়ায় নাইকো মন অতি ডেঁপো দুকান কাটা কাউকে নাহি মানে গুরুমশাই টিকিওয়ালা জমিদারের বাড়ি ছাত্র দুটি করেন পাঠ – (সবাই) হচ্ছে জ্বালাতন ! ছাত্র দুটি বেজায় জ্যাঠা, (সবাই) ধর ওদের কানে ! নিত্যি যাবেন ঝিঙেটোলা (সেথা) আড্ডা জমে ভারি ! প্রথম দৃশ্য পণ্ডিত। (স্বগত) রোজ ভাবি জমিদারমশাইকে বলে কয়ে […]

 শৈলী টাইপরাইটার

সুকুমার রায়ের গল্প: “দাশুর কীর্তি”

দাশুর কীর্তি নবীনচাঁদ ইস্কুলে এসেই বলল, কাল তাকে ডাকাতে ধরেছিল । শুনে স্কুল সুদ্ধ সবাই হাঁ হাঁ করে ছুটে এল । ‘ডাকাতে ধরেছিল ? বলিস কিরে !’ ডাকাত না তো কি ? বিকাল বেলায় সে জ্যোতিলালের বাড়িতে পড়তে গিয়েছিল, সেখান থেকে ফিরবার সময় ডাকাতরা তাকে ধরে তার মাথায় চাঁটি মেরে, তার নতুন কেনা শখের পিরানটিতে […]

 শৈলী টাইপরাইটার

সুকুমার রায়ের নাটক: “অ বা ক জ ল পা ন”

অবাক জলপান [ ছাতা মাথায় এক পথিকের প্রবেশ, পিঠে লাঠির আগায় লোট-বাঁধা পুঁটলি, উস্কোখুস্কো চুল, শ্রান্ত চেহারা ] পথিক । নাঃ ‒ একটু জল না পেলে আর চলছে না । সেই সকাল থেকে হেঁটে আসছি, এখন‌‌ও প্রায় এক ঘণ্টার পথ বাকি । তেষ্টায় মগজের ঘিলু শুকিয়ে উঠল । কিন্তু জল চাই কার কাছে ? গেরস্তের […]

 শৈলী টাইপরাইটার

সুকুমার রায়ের গল্প: “হ য ব র ল”

গল্প: হ য ব র ল বেজায় গরম । গাছতলায় দিব্যি ছায়ার মধ্যে চুপচাপ শুয়ে আছি, তবু ঘেমে অস্থির । ঘাসের উপর রুমালটা ছিল ; ঘাম মুছবার জন্য যেই সেটা তুলতে গিয়েছি, অমনি রুমালটা বলল, ‘ম্যাও !’ কি আপদ ! রুমালটা ম্যাও করে কেন ? চেয়ে দেখি রুমাল তো আর রুমাল নেই, দিব্যি মোটা সোটা […]