প্রকৃতি এবং শিল্প

Filed under: ছবিশৈলী |

ইনকাদাতে” জাপানের আওমরি প্রিফেকচার এর একটি গ্রামের নাম। মাত্র ৮৭০০ জন লোকের এই গ্রামটি একটি বিশেষ কারণে সাড়া পৃথিবীতে পরিচিতি লাভ করেছে। সেটি হলো ধান ক্ষেতের ছবি। না, কৃষকেরা এই ছবি তৈরীতে কোন রং ব্যবহার করে না। আসলে এই চিত্রকর্মের মূলে যে বিষয়টা আছে, তা হচ্ছে বিভিন্ন রংয়ের ধানের ব্যবহার।এই গ্রামটির কৃষকেরা ১৯৯৩ সাল থেকে তাদের জমিতে বিভিন্ন রংয়ের ধান লাগিয়ে ধান ক্ষেতটিকে একটি ছবির মতো করে তোলে। কৃষকেরা সাধারণতঃ হালকা বেগুনী এবং হলুদ পাতার (কোদাইমাই ধান) ধানের সাথে লোকাল গাঢ় সবুজ রংয়ের (সুগারু রোমান ধান) যে ধান আছে তা ব্যবহার করে। যখন বিভিন্ন রংয়ের ধান গাছ গুলো বড় হয় তখন পুরো মাঠ জুড়ে ফুটে উঠে আর্শ্চয জনক এই ছবি। প্রতি বছরই ছবির বিষয় বস্তু পরিবর্তন করা হয়। যেমনঃ এ বছর করা হয়েছে অশ্বারোহী যোদ্ধার ছবি। আর এ ছবি দেখতে সাড়া পৃথিবী থেকে ছুটে আসে মানুষ। গত বছর এসেছিলো প্রায় ১,৫০,০০০ জন। প্রতি বছর মে মাসের দিকে এই চিত্রর্কমটি শুরু হয়। আর ধান কাটা হয় সেপ্টেম্বর মাসে। এ বছরের মূল ছবিটি আসলে দুইটি ভাগে বিভক্ত। একটি হচ্ছে জাপানের সেনগাকু পিরিয়ডের অশ্বারোহী যোদ্ধার ছবি ও অপরটি হচ্ছে অশ্বারোহী নেপোলিয়নের ছবি।
সেনগাকু পিরিয়ডের অশ্বারোহী যোদ্ধার ছবি…

1
ছবিটি কাছ থেকে দেখলে যেমন মনে হয়…

2
আরো কাছ থেকে…

3
অশ্বারোহী নেপোলিয়নের ছবি…

4
২০০৭ সালে জাপানের বিখ্যাত দুইটি হকুসাই চিত্রের আদলে করা হয় এই ধানক্ষেতের চিত্রর্কমটি। সত্যিকারের হকুসাই ছবি দুইটি…

5
এতে চারটি ভিন্ন জাতের ধান ব্যবহার করা হয়। চলুন তাহলে দেখে আসি সেই বিখ্যাত কাজের কিছু দুর্লভ মুহুর্তঃ

সকলে ধান লাগানোয় ব্যাস্ত…

6
লাগানোর পর ক্ষেত…

7
আস্তে আস্তে ভেসে উঠছে ছবি…

8
আরো একটু স্পষ্ট

9
পুরোটাই…

1০
ফসলের ক্ষেতে ফুটে উঠলো – The Great Wave of Kanagawa
জমিটার অন্যপার্শ্বে করা হয়েছিলো জাপানের বিখ্যাত মাউন্ট ফুজির ছবি…

11

12
দুটো জমিই পাশাপাশি…

13

২০০৭ সালের সেই ছবির ধান কাটার জন্য প্রায় ৯০০ জন স্বেচ্ছাসেবক যোগ দেয়।
14

16

17
ইনকাদাতে গ্রামের ২০০৬ সালের চিত্রর্কমটি…

18
ইনকাদাতে গ্রামের ২০০৫ সালের চিত্রর্কমটি…

19
ইনকাদাতে গ্রামের ২০০২ সালের চিত্রর্কমটি…

20
এই ইনকাদাতে গ্রামের দেখাদেখি জাপানের অন্যান্য বেশ কিছু গ্রামেও এ বিষয়টি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। প্রচলন শুরু হয়েছে ইয়ামাগাতা, আইচি প্রিফেকচারে। ইয়ামাগাতা প্রিফেকচারের২০০৭ সালের চিত্রটি…

21
এবং ২০০৬ সালের চিত্রটি…

22
ইয়ামাগাতা-র আরেকটি ছবি…

23
আইচি প্রিফেকচারের ২০০৫ ও ২০০৬-এর চিত্র…

24
আইচি প্রিফেকচারের আরো একটি ছবি:

25
কৃষকেরা মাঠে মোনালিসাকেও একেঁছিলো…

তবে সবচেয়ে আশ্চর্যজনক বিষয় হচ্ছে কৃষকেরা এই চিত্র কর্ম তৈরী করতে কোন আধুনিক টেকনোলজি ব্যবহার করেন না। চিত্রকর্মের এই বিষয়টি দিন দিন হয়ে উঠছে জাপানের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি।

এ বছর কিন্তু এখনো ধান কাটা হয়নি। তাই যদি দেখতে চান যেতে পারেন ইনকাদাতে গ্রামে। সবাই ভালো থাকবেন, সবার জন্য শুভেচ্ছা।

(তথ্যসূত্রঃ ইন্টারনেট)

শৈলী.কম- মাতৃভাষা বাংলায় একটি উন্মুক্ত ও স্বাধীন মত প্রকাশের সুবিধা প্রদানকারী প্ল‍্যাটফর্ম এবং ম্যাগাজিন। এখানে ব্লগারদের প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর। ধন্যবাদ।

17 Responses to প্রকৃতি এবং শিল্প

  1. আমি মুগ্ধ হলাম। এমন খবর জানানোর জন‌্য আপনাকে অভিনন্দন।
    দুটি কথা-
    (১) মহা সুনামী আর ভুমিকম্পেকি কোন ক্ষতি হয় নি।
    (২) পেটে গু থাকলে জিলাপীর প্যাচ দিয়ে হাগু করা যায়।

  2. অসাধারণ ছবিগুলো।
    (*) (*) (*) (*) (*)

    rabeyarobbani@yahoo.com'

    রাবেয়া রব্বানি
    মে 11, 2011 at 6:59 পূর্বাহ্ন

  3. অনেক আগে দেখেছিলাম আজ আবার দেখলাম

  4. অনন্য অসাধারন চিত্রকর্ম,অসাধারন শিল্পমনের পরিচয়। আর যার মাধ্যমে আমাদের দেখার সৌভাগ্য তাঁকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
    :rose: :rose:

  5. (*) (*) মুগ্ধ হলাম স্যার!!!!!

    mannan200125@hotmail.com'

    চারুমান্নান
    মে 12, 2011 at 9:37 পূর্বাহ্ন

  6. বাহ!!!
    :rose:
    প্রিয়তে রাইখ্যা দিলাম গো…

    রাজন্য রুহানি
    মে 13, 2011 at 11:43 পূর্বাহ্ন

  7. শীল্পটাকে শিল্প করে দেন না ভাই
    এছাড়া তো উপায় নাই… :D

    রাজন্য রুহানি
    মে 14, 2011 at 3:39 অপরাহ্ন

  8. অসাধারন। ওরা পারে আমরা পারি না কোন কিছুতেই! আমরা ধ্বংস করতে পারি, গড়তে পারি না।

    সাহাদাত উদরাজী
    মে 17, 2011 at 3:29 অপরাহ্ন

মন্তব্য করুন