আহমেদ মাহির

বিবর্ণ পাতা থেকে :: ২

Decrease Font Size Increase Font Size Text Size Print This Page

অমি

বাইরে ভীষন ঝড় হচ্ছেরে । শ্রাবনে এমন ঝড় তো হবার কথা না ! এমন ঝড় শুধু বৈশাখে হয় । কে জানে , প্রকৃতির মাথাও বুঝি খানিকটা আমার মতই গুলোতে শুরু করেছে ।

প্রকৃতির ঝড় মানব মনেও বেশ প্রভাব ফেলে , তা তোর চে’ ভালো আর কে জানে ? তখন তুই-আমি দু’জনে , আমাদের বাড়ির বকুল-তলার খেলার সাথি ; আমরা ঝড় নেই – বাদলা নেই কি হুল্লোর করতাম । তোর কি মনে আছে সে সব দিনগুলি ? আমার তেমন মনেই পরে না । একরাশ ব্যস্ততার অভিনয়ে চাপা দিয়ে রাখি ওসব দিন । তবু আজ খুব মনে হচ্ছে । ঝড় বুঝি সব মিছে অভিনয় উড়িয়ে নিয়ে গেলো !

ঝড় আমি ভীষন অনুভব করতে পারতাম , আমাদের নড়বড়ে কাঠের ঘরটিতে । শুধু আমি কেন , আমাদের ৫১ বর্তী পরিবারের সবাই বেশ পারতেন । প্রতি ঝড়ের মৌসুমে বড় চাচা বেশ ভারিক্কি চালে বলতেন , ” … এবারে ঝড়ে টিকে গেলে , ঘরের খুঁটিগুলো সারিয়ে নিতে হবে অন্ততঃ … ” । ঝড়ের মৌসুম চলে গেলে তা আর কে মাথায় রাখে । ঘর সারানোর টাকা কি আর বড় চাচা একা দেবেন ? ঘর তো সবার , তাই না ?

যখন ঝড় হত , তখন ঘরের সবাই এথসাথে দাদীমার খাটে বসে থাকতাম । দাদীমার খাটকে খাট না বলে পালঙ্ক বলাই ভালো । সেই পালঙ্কও ঘরের খুঁটিগুলোর মত নড়বড়ে । ঝড়ের সময় সেই নড়বড়ে খাটে আমি , দাদীমা , ছোট চাচী , চাচাত’ বোন – তন্নি , জোনাকী , তাজিয়া , আম্মা , বড় চাচী আর কখনো কখনো সাব্বাইকে ভয় দেখানোর জন্যে ছোট চাচাও থাকতেন । ঝড়কে আমরা সবাই ভয় পেতাম – এই বুঝি ঘরটা মাথার ওপর পরে গেল ! শুধু ছোট চাচাই একমাত্র মানুষ , যিনি ঝড়কে ভয় পেতেন না । তার এ অসীম সাহসের কারনে তিনি আমার সেই নির্ভেজাল ছোট্ট মনে নায়ক বনে গিয়েছিলেন ।

ঝড় যখন চরম রূপ নিত , সবাই তখন দোয়া দুরুদ পড়া শুরু করত । এক সময় দাদীমা বলে উঠতেন , “… ও মাহির , চিল্লায়া আযান দে । আল্লাহ রহম করব … “। আর অমনি কি এক গভীর বিশ্বাসে আমি প্রাণপণে চিৎকার করে উঠতাম ,

আল্লাহু আকবার ! আল্লাহু আকবার !

কখনো ঝড় থেমে যেতো – কখনো থামত না । তবু ঝড় কখনোই আমাদের নড়বড়ে সেই ঘরটিকে পরাজিত করতে পারেনি । এখন সেই ঘরটি নেই । সেখানে ছোট চাচার ইটের তৈরি দালান !

আচ্ছা অমি , আমি আমাদের নড়বড়ে কাঠের ঘরটিতে যেমন করে ঝর অনুভব করতে পেরেছিলাম , তোদের টিনে ছাওয়া দোচালা ইটের ঘরে তেমনটি কি কোনোদিনই তুই পেরেছিলি ? মন বলে , পারিসনি । পারার কথা না ।

আজ যাই রে । খুব ক্লান্ত বোধ করছি । অনেকটা পথ যে হেঁটে চলেছি !… প্রার্থনা করি, ভাল থাকিস ।

তোর ভাঙ্গাচোরা
মাহির

শৈলী.কম- মাতৃভাষা বাংলায় একটি উন্মুক্ত ও স্বাধীন মত প্রকাশের সুবিধা প্রদানকারী প্ল‍্যাটফর্ম এবং ম্যাগাজিন। এখানে ব্লগারদের প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর। ধন্যবাদ।


8 Responses to বিবর্ণ পাতা থেকে :: ২

  1. nader_ch@gmail.com'
    অজ্ঞাতনামা কেউ একজন আগস্ট 23, 2010 at 9:50 অপরাহ্ন

    এমনি আমাদের জীবনে কত না স্মৃতি ঝড় নিয়ে, বৃষ্টি নিয়ে, ভরা আবেগ নিয়ে। কিছুকি আর বুলা যায়? আপনার লিখাগুলো সেইসব নিজস্ব ঘটনাগুলোও আবারও মনে করিয়ে দিচ্ছে। চালিয়ে যান। ভালো লেগেছে।

  2. mahirmahir3@gmail.com'
    আহমেদ মাহির আগস্ট 23, 2010 at 11:24 অপরাহ্ন

    আমি আমাদের নড়বড়ে কাঠের ঘরটিতে যেমন করে ঝর অনুভব করতে পেরেছিলাম , তোদের টিনে ছাওয়া দোচালা ইটের ঘরে তেমনটি কি কোনোদিনই তুই পেরেছিলি ? মন বলে , পারিসনি । পারার কথা না ।

    স্বপ্নবাজ ভাই , শুভকামনা রইল আপনার জন্যে ।

  3. snmhoque@yahoo.com'
    আজিজুল আগস্ট 24, 2010 at 4:20 পূর্বাহ্ন

    বেশ লাগলো লিখাটা। ছোট হয়ে গেছে। লেখকের কাছে প্রত্যাশা-সামনে আরো বড় লিখা পাবো। আবারো ধন্যবাদ লিখাটির জন্যে

  4. রিপন কুমার দে আগস্ট 24, 2010 at 1:53 অপরাহ্ন

    :yes: :yes: :yes: :yes: :yes: :yes: :yes: :yes: :yes:

  5. mahirmahir3@gmail.com'
    আহমেদ মাহির আগস্ট 24, 2010 at 3:23 অপরাহ্ন

    আহা ! পাঁচখানা তারা না পাইয়া , যদি একখানা আকাশ পাইতাম …
    যা হোক , ধন্যবাদ ।
    আকাশ … আকাশের শুভ্র মেঘ … তারা আর মেঘের লূকোচুরি খেলার অপেক্ষায় রইলাম ।

You must be logged in to post a comment Login