জুলিয়ান সিদ্দিকী

লেখকরাই চোর, নাকি লেখাগুলো চুরি হয়ে যাচ্ছে?

Decrease Font Size Increase Font Size Text Size Print This Page

তেল

দেবকুমার মুখোপাধ্যায়  / একুয়া রেজিয়া

ন্যাশানাল হাইওয়ে – জাতীয় সড়ক। লোকে বলে হাইরোড। বড় অস্থির এই সড়ক। পাখীর মত হুস হুস করে উড়ে যাচ্ছে গাড়ি। পড়ন্ত বেলায়, সড়কের ধারে, একটা পেল্লায় পাকুড়গাছের গা ঘেঁষে দাঁড়িয়ে আছে – হাতকাটা ঘোঁতা।

ইন্টিরিয়র ডেকরেটর

দেবকুমার মুখোপাধ্যায়/সবুজ আলম

– জোনাকি, শহরে এখন তোমার খুব নামডাক। জীবনের সেরা সময়টা অপরের ঘর সাজিয়ে কাটালে। এবার নিজের ঘরের খবর বলো –

– ঠিকই বলেছ অকৈতব, কোন কোন ঘর সাজিয়ে মনে হয়েছে ; বিনিময় মূল্য নয়, ঐরকম একটা ঘর পেলে বাকি জীবনটা বেশ কাটিয়ে দেওয়া যেত।

– কাগজে ছোট্ট একটা বিঞ্জাপন – জোনাকি রয় (ইন্টিরিয়র ডেকরেটর) দেখেই ভ্রাম্যভাষ এ ডাকলাম তোমাকে… অবচেতন বলল – ওকেই ডাক…

– ফার্স্ট ইয়ার কলেজে আমার অনেক ভক্ত ছিল। তাদের মধ্যে অকৈতব মুখার্জি নামে তুমিও একজন।

ভোটের শাড়ি

শাওন পরিচয় / বৃষ্টিবেলা

সুবলা অন্তঃস্বত্বা। এখন তার আট মাস। বাজারের কিছু চিংড়িমাছ কিছু পাকা সব্জির উপর তেল মসলা ঢেলে কোন রকম একটা চচ্চড়ি করে বারান্দায় বসে জল ভাতের সাথে জিভে তুলেছিল। সকালের সুর্য তাদের বারান্দার ভুমিতলের সাথে ষাট ডিগ্রি কোন করে আকাশে খোলাখুলি কিরন দিচ্ছে। তার ফাঁকে সে স্বামিকে জিজ্ঞেস করল ‘ও বটুর বাপ এবার ভোটে কাপড় দেবে?’ অশিক্ষিতা সুবলা শাড়িকে সাধারন অর্থে কাপড় বলে। শ্রীমন্ত রান্না ঘরের কোনটাতে লেবু গাছটার তদারকি করছিল। এবার অনেক বেশি ফুল ধরেছে। সুবলার কথার কোন উত্তর না দিয়ে সে নিজের কাজে ব্যস্ত ছিল।

ঔরসতন্ত্র

শর্মিলা দত্ত/রুমিন রিদি

ভরা ঘাট, ভরা মাঠ।

ভরা মাস শরীর নিয়ে শ্রাবণীলতা হাঁটে।

ফুল্লবাণী বাধা দেয়নি। বরঞ্চ মনে মনে ভৈরবীর নামে মানত করেছে।

ফুল্লরাণীর হাড় জুড়িয়েছে।

শ্রাবণীলতা আনমনে হেঁটে চলে। জগদীশ খুড়া ক্যান ক্যানে মিঁয়ানো গলায় দু’তিনবার ব্যর্থ চেষ্টা করেছে।

দুপুরে তরুলতা

সুব্রত মন্ডল /রনি হায়দার

সন্ধ্যার বিষণ্ণতা আমায় কুরে কুরে খায়। গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি আর হাল্কা হিমেল হাওয়া যেন প্রলয়ের সংকেত বয়ে আনে। বাস ট্যাক্সি মিনি প্রতিটি যাত্রীযানই পরিপূর্ণ। নিত্য অফিস যাত্রীরা দিশাহারা। জীবনযুদ্ধের এ দৃশ্যপট আমার ক্লান্তি আরও গাঢ়তর করে। বাড়ি ফেরার কোন তাগিদ আমি অনুভব করি না। চঞ্চলা বালিকা, আধুনিকা যুবতী আর অতি আধুনিকা প্রৌঢ়ার দল নিজ নিজ দ্বীপের সীমানা মুছে আজ নতুন দ্বীপের সীমানা রচনায় ব্যাস্ত-আসন্ন বিপদের আশঙ্কায়। এক একটি যাত্রীবাহন আসে-থামে-যায়। বৃষ্টি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আবার দৃশ্যপট পাল্টে যায়। নতুন বৃত্ত রচনা হয়, নতুন দ্বীপ জেগে ওঠে।

শেষ থেকে শুরু

অমৃতা দে/রুমিন রিদি

জীবনের নিঃসঙ্গ ক্লান্ত বিকেলগুলো একে একে পার হয়ে যায়। শেষ বিকেলের রক্তিম আভায় আবার একটা ভাবি দিনের রেশ। চরম ব্যবস্ততাপূর্ন নতুন ভোরের সংজোযন পৃথিবীর ক্যালেন্ডারে। ঝটপট সারা চান খাওয়া। তাড়াতাড়ি নিজেকে গুছিয়ে নিয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে এক দৌড়ে বাস স্ট্যান্ড। ব্যস্ত জনতার গুঁতোগুঁতি খেয়ে বাসে ওঠা। গন্তব্য সেই এক ঘেয়ে কলেজ।

পোস্টটা বেশি বড় হয়ে গেল বলে দুঃখিত। তবে সংশ্লিষ্ট লেখকদের এবং শৈলীর দৃষ্টি আকর্ষন করছি যে পোস্টে সংযুক্ত লেখাগুলো  কলকাতা ভিত্তিক এই ওয়েব জিনে(http://sabjanta.info/index.php/Table/ছোট-গল্প-Bangla-Stories/) দেখতে পেলাম। আমি ব্যাপারটা বুঝতে পারছি না যে লেখাগুলো কারা চুরি করলো? নাকি একই লেখক ভিন্ন নামে লেখেন?

শৈলী.কম- মাতৃভাষা বাংলায় একটি উন্মুক্ত ও স্বাধীন মত প্রকাশের সুবিধা প্রদানকারী প্ল‍্যাটফর্ম এবং ম্যাগাজিন। এখানে ব্লগারদের প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর। ধন্যবাদ।


18 Responses to লেখকরাই চোর, নাকি লেখাগুলো চুরি হয়ে যাচ্ছে?

  1. শৈলী বাহক ফেব্রুয়ারী 3, 2011 at 8:07 অপরাহ্ন

    আমরা এইমাত্র দেথতে পেলাম, এটা একজন লেখকেরই কাজ। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন নিকে লিখে থাকেন। আমরা লেখককে সাময়িকভাবে ব্যান করলাম। আমরা সকল শৈলারদেরকে শৈলনীতিমালা সুষ্টভাবে মেনে চলার জন্য অনুরোধ করছি। অন্যথায় শৈলী তার কঠোর সিদ্ধান্তে অবিচল থাকবে।

    ধন্যবাদ আপনাকে বিষয়টি গোচরে আনার জন্য।

  2. imrul.kaes@ovi.com'
    শৈবাল ফেব্রুয়ারী 3, 2011 at 9:31 অপরাহ্ন

    কী অদ্ভুত ! একুয়া রেজিয়া , রুমিন রিদি , বৃষ্টি বেলা , রনি হায়দার আমার খুব প্রিয় লেখক ছিল … বিশ্বাস করতেই পারছি না !
    সবুজ আলম নামে একজন কে আমাদের একটা কবিতা গ্রুপ থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল পলাশ খসরু নামে এক কবির কবিতা নিজের নামে চালিয়ে দেওয়ায় জন্যে … প্রথম থেকে ঐ নামে আমার সন্দেহ ছিল ।

    খুব কম লিখি আগে যা লিখতাম লোকাল পত্রিকা , লিটল ম্যাগের আফিসে গিয়ে জমা দিয়ে আসতাম , এখন লিখলেই শৈলীতে লিখি … জানি আমি ভাল লিখতে পারি না … তারপরেও আমার কবিতাগুলো আমার জীবনেরই অংশ , তাই খুব ভয় হয় যদি না আবার কেউ আমার অঙ্গছেদ করে …এই দুঃসময়ে শৈলীকে পাশে পাবো আশা করি ।

    আজা সারাদিন নিজের ওপর খুব ক্ষেপে ছিলাম ,খুব প্রিয় একজনকে কষ্ট দেওয়ার পর … এখন কেন যেন মনে হচ্ছে একিছুই না আমিতো বেশ আছি ভালো আছি ।
    এই শেষ রাতের শেষ কথাটুকু আমার গুরুকে বলছি … এই অশুদ্ধ সময়ে শুদ্ধ মানুষদের অযথা কষ্ট দেওয়াও অনেক বড় পাপ , পারলে ক্ষমা করবেন ।

  3. rabeyarobbani@yahoo.com'
    রাবেয়া রব্বানি ফেব্রুয়ারী 4, 2011 at 3:21 পূর্বাহ্ন

    এটা মনে হয় না একজন লেখক করবে । লেখক তার পরিচিতি চাইবে ।দুই জায়গায় ভিন্ন নামে লিখে নিজের একটা কষ্ট করে লেখা গল্প অনিশ্চয়তার মুখে ফেলবে না বলে আমার মনে হয়।তবে এখানে একটা ব্যাপার লক্ষ্যণীয় সবগুলো লেখার আবহ , চরিত্রের নাম আর কাহীনি পশ্চিম বাংলার ।

  4. imrul.kaes@ovi.com'
    শৈবাল ফেব্রুয়ারী 4, 2011 at 6:06 পূর্বাহ্ন

    খুবই বিচক্ষণ পাঠক রাবেয়া রাব্বানি , রনি হায়দারের লেখায় ওবাংলার ছাপটা অনেকেই টের পেয়েছে … কোন এক গল্পের মন্তব্যে জুলিয়ান সিদ্দিকী এমন করেই কী যেন বলেছিলেন , গতকালও পূজা মৌলির লেখায় আমি বলেছি সনাতনী একটা চমত্‍কার স্বাদ আছে , কিন্তু বৃষ্টিবেলার লেখার একটা নিজস্বতা টের পাই তাহলো সাবলীলতায় উত্তল আধুনিকতার ছাপ আছে যাই হোক কষ্টের কথা বৃষ্টিবেলা আমার নিয়মিত পাঠক ছিলেন এবং অসংকোচে অনেক প্রশ্ন করতেন যা আমার খুব ভালো লাগতো ভাবতাম এমন পাঠক পাওয়া ভাগ্যের বিষয় কিন্তু তিনি তার লেখায় কোন প্রশ্নকরলে জবাব খুব অল্প সময়েই দিতেন , কোন এক লেখায় সিদ্দিকী ভাই কেন জানি প্রশ্ন করেছিলেন তিনি রাজশাহীতে পড়েন কিনি ঠিক মনে আছে এর জবাবটা আসে নি । একুয়া রেজিয়া খুব কম লিখলেও আমার একজন ভাল পাঠক ছিলেন ।

    এই বিষয়ে প্রিয় শৈলী কঠোর নয় শুধু আরো সতর্ক হবে আসা করি ।

  5. রাজন্য রুহানি ফেব্রুয়ারী 4, 2011 at 6:23 পূর্বাহ্ন

    রাতে ঘুমের ট্যাবলেট খেয়ে ঘুমানোর পর ১২টার সময় ওঠে আগের চেয়ে বেশ ফুরফুরে লাগছিল। নেট ওপেন করে আমি তো থ। অবিশ্বাস্য ঘটনা। এই ভার্চুয়াল জগতে মিথ্যে নামযশ পেয়ে আর যা-ই হোক আত্মতৃপ্তি পাওয়া যায় বলে আমার মনে হয় না।
    তারপরেও অপরাধ যেমন ক্ষমাযোগ্য তেমনি শাস্তিযোগ্যও। শাস্তির পক্ষে বললাম এজন্য যে, কিছু শাস্তির খাতিরে মানুষ লোকলজ্জা-অপরাধবোধের মাত্রা বুঝে পুনরায় সে-কাজ থেকে বিরত থাকে।
    এমন কাজ হওয়ায় নিজের কাছে নিজেকেই আরো ঘৃণিত মনে হচ্ছে। হায়রে মানুষ! হায়রে লেখক! তোমরা তো আলো দেখাতে চেয়েছিলে, তা চুরি করা, অন্যের। অথচ, তোমরা এতদিনে আমাদের প্রিয় হয়ে গিয়েছিলে!
    মাথাটা আবার ভনভন করছে। আরো ঘৃণায় নিজের ইমিউন সিস্টেম দুর্বল হয়ে যাচ্ছে, বায়োফিডব্যাক যে হরমোন নিঃসরণ করছে তা কেবলই ক্ষতিকর। আবার অসুস্থ হয়ে যাবো না তো!
    ……………………………
    >:D<
    বুকে আসেন জুলিয়ান
    চলুন কেঁদে করি বান…
    হাল্কা করি কষ্টকে
    দূরে ছুড়ি নষ্টকে…
    ^:)^
    ……………………………
    [-O<

    • imrul.kaes@ovi.com'
      শৈবাল ফেব্রুয়ারী 4, 2011 at 6:56 পূর্বাহ্ন

      ভাই এতো সহজেই হার মানবো কেন , ইমিউন সিস্টেম শানিয়ে নিন বোধগুলো জ্বলে ওঠুক নিউট্রোফিল , ম্যাকরোফেজ আর লিম্ফোসাইটের আলোতে । বায়োফিডব্যাক যেহেতু বুঝেন তবে ভয় কিসে সাহস রাখুন , সামনে চলুন সামলে চলুন !

      • rabeyarobbani@yahoo.com'
        রাবেয়া রব্বানি ফেব্রুয়ারী 4, 2011 at 7:04 পূর্বাহ্ন

        শারীরিক সিষ্টেম এর এই নামগুলো অজানা। তবে মূল ভাব বুঝে বলি আপনার সাথে একমত ।

      • রাজন্য রুহানি ফেব্রুয়ারী 4, 2011 at 3:51 অপরাহ্ন

        চলতে চাই
        বলতে চাই
        গলতে চাই স্নেহে আদরে আর ভালোবাসায়;
        ক্যান জানি
        বীজ বুনি
        নেতিচিন্তার, উৎসাহ হারানো চুম্বকীয় হতাশায়…

  6. megh613@gmail.com'
    মেঘ ফেব্রুয়ারী 4, 2011 at 2:42 অপরাহ্ন

    আমি খুব কম আসি এখানে তবে এসেই একটা লেখা পড়ে সন্দেহ হয়েছিলো যে তার নিজের লেখা কি না। কিন্তু এতটা ভাবিনি তখন।
    খুবই দুঃখজনক।

  7. juliansiddiqi@gmail.com'
    জুলিয়ান সিদ্দিকী ফেব্রুয়ারী 4, 2011 at 5:59 অপরাহ্ন

    প্রিয় শৈলাররৃন্দ ও সঞ্চালক, এ পোস্ট হয়ত দিতাম না, যদি তারা পোস্টে মূল লেখকদের নাম উল্লেখ করতেন। বেশি খারাপ লাগলো এই ভেবে যে, একজন লেখক যা-ই লেখেন না কেন, তাতে থাকে তার শ্রম, নিষ্ঠা আর ভালোবাসা, আরেকজন বিনা শ্রমে সেই কৃতিত্ব ছিনিয়ে নেবে ব্যাপারটা খুবই দুঃখের আর লজ্জারও। লেখকদের লেখালেখি বিষয়ে অবশ্যই সৎ হওয়া বাঞ্ছনীয়। আমার মতে এসব অসৎ লেখকদের পরিচয় ব্লগ-জগতে ব্যাপক ভাবে প্রচার হওয়া উচিত। লেখা চোরদের ব্যাপারে সহানুভূতি থাকা অনুচিত।

  8. নীল নক্ষত্র ফেব্রুয়ারী 9, 2011 at 5:30 পূর্বাহ্ন

    অনেক দিন পরে এসে যা দেখলাম তা এমন নতুন কিছু নয় আমাদের জন্য। এটা খুবই স্বাভাবিক এবং চির চেনা। তার পরেও বলি নিজের নামে পরিচিত হবার মধ্যেই তৃপ্তি পাবার চেষ্টা করা উচিত।
    আমিও বিভিন্ন সাইটে লিখতাম কিন্তু এক নামে এক পরিচয়ে। ওয়েব সাইটে লেখা লেখি করা যারা খেলা মনে করেন তাদের সদয় জ্ঞ্যেতার্থে বলছি আসলে এটা খেলার স্থান নয়। খেলার উদ্দেশ্যে ছলনা করার এমন কি প্রয়োজন যেখানে পুরোটাই সবার কাছে অচেনা থেকে যাচ্ছে।
    একই সাথে সাইট এডমিনিস্ট্রেটরদেরও বলছি আপনারাও একটু চোখ কান খোলা রাখুন। ইদানিং লক্ষ্য করছি এই লেখালেখির ছলে পোস্টিং গুলি বিজ্ঞাপনের আকার ধারন করছে। হয়ত কেউ কেউ লক্ষ্য করেছেন তাই আর ওগুলি দেখিয়ে দিলাম না। এ ব্যাপারেও প্রশাসনিক সতর্কতা আশা করছি।
    জুলিয়ান ভাইর এই শার্লক হোমস এর ভুমিকার জন্য জানাচ্ছি ধন্যবাদ। সাথে আরও জানাচ্ছি ভাল থাকার, সুস্থ থাকার শুভ কামনা।

  9. juliansiddiqi@gmail.com'
    জুলিয়ান সিদ্দিকী ফেব্রুয়ারী 11, 2011 at 4:33 অপরাহ্ন

    একুয়া চতুর্মাত্রিকে লেখেন। সেখানে তিনি এ্কটি মন্তব্যে জানিয়েছেন যে, এ নিকটি তার নয়। এখানে তার কোনো অ্যাকাউন্ট নেই। তাহলে কেউ অসৎ উদ্দেশ্যে শৈলীর দূর্নাম করতে এসব করেছে বলেই মনে হচ্ছে।

You must be logged in to post a comment Login