দুই জামাইয়ের পারফরম্যান্সে বেজায় খুশি শ্বশুর-শাশুড়ি!!

বিষয়: : খবর |

Mushfiqs-wedding-reception-at-Bogra-4মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ আর মুশফিকুর রহিম। আজ অ্যাডিলেড ওভালে বিশ্বকাপের ৩৩তম ম্যাচে ইংল্যান্ড বধ মিশনে এই দুই ভায়রা মাঠের কাজটি করে দেখালেন। ব্যাটিংয়ের শুরুতেই বিপর্যয়ের মুখে পড়া বাংলাদেশ দলকে একটি লড়াইযোগ্য রানের সংগ্রহ এনে দেন এই দুই ব্যাটসম্যানই।

আর দুই জামাইয়ের এমন পারফরম্যান্সে খুশির ঝিলিক শ্বশুর ফজলুর রহমান ও শাশুড়ি নাজনিন আক্তারের চোখেমুখে।

শাশুড়ি নাজনিন আক্তার বলেন, দুই জামাইয়ের খেলা সব সময়ই তাদের ভালো লাগে। তারা ভালো খেললেও রত্ন, না খেললেও তা-ই।

তবে মাহমুদউল্লাহর সেঞ্চুরিতে বেশ খুশি শ্বশুর ফজলুর রহমান। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রথম সেঞ্চুরি মাহমুদউল্লাহর। আর এটাই তার শ্বশুরের জন্য সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি। ফজলুর রহমান বলেন, ‘আমার ধারনা ছিলো বড় জামাইর ভালো সময় আসবে। সে বিশ্বকাপের আগে অনেক পরিশ্রম করেছে। বিশ্বকাপের আগে আমাদের এখানে এলে কিছুই খেত না। অনেক শুকিয়ে গিয়েছিল। কেবল বলত, বিশ্বকাপে যদি ভালো করতে পারি, টানা সাত দিন আপনাদের এখানে ইচ্ছেমতো খাব।’

শাশুড়ি নাজনিন আক্তার বললেন, মুশফিক সেঞ্চুরি পায়নি, তা নিয়ে আক্ষেপ নেই। দুজনই ভালো খেলেছে, দলে অবদান রেখেছে, এতেই খুশি। মুশফিক ধারাবাহিক ভালো খেলে।

মুশফিক দলের জয়ে অবদান রাখতে পেরেছে এতেই খুশি। অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকতা ফজলুর রহমান বললেন, ‘আমাদের তো ছেলে নেই। এ দুজনই আমাদের ছেলে। তাদের সাফল্য আমাদের সাফল্য, বাংলাদেশের সাফল্য।’   সূত্র: বিডি-প্রতিদিন/০৯ মার্চ ২০১৫/ এস আহমেদ।

khalid2008@gmail.com'
আমার জামায় আঁকা চাঁদ, আমার রক্তে যায় ডুবে, আমার নামেতে সেজে সূর্য, আমারই রক্ত থেকে উঠে আসে পূবে, সকল সফল মৃত শুয়ে আছে, পিঠে নিয়ে বরফের চাঁই, আমি মুখ ফিরিয়ে চলে যাই।
শৈলী.কম- মাতৃভাষা বাংলায় একটি উন্মুক্ত ও স্বাধীন মত প্রকাশের সুবিধা প্রদানকারী প্ল‍্যাটফর্ম এবং ম্যাগাজিন। এখানে ব্লগারদের প্রকাশিত লেখা, মন্তব‍্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর। ধন্যবাদ।

মন্তব্য করার জন্য আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে। Login