তাহমিদুর রহমান

ধারাবাহিকঃ নিশিযাত্রা (পর্ব ১)

এক মেস থেকে বের হয়েই রফিক বুঝতে পারল এসময়ে বের হওয়া একদম ঠিক হয়নি। পশ্চিম আকাশ দেখতে দেখতেই ঘন কাল মেঘে ছেয়ে গেছে। রিক্সায় বসেই ভাবতে থাকে সে ফিরে যাবে কিনা? তারপর ফিরে না যাওয়ার সিন্ধান্ত নেয় সে এবং তার সাথে সাথে রিক্সাও সমান গতিতে এগুতে থাকে। মধ্যবয়সী রিক্সাওয়ালাটা বাতাসের ঝাপটায় রিক্সা নিয়ে বেশি জোরে […]

 তাহমিদুর রহমান

বাপের মাথা ফাটিয়ে দেওয়া উচিত

আমার এক বন্ধু মাস্টার্সে পড়ে। তার বাড়ি বাংলাদেশের কোন এক গ্রামে। তো সকাল বেলা তার মা টেবিল গোছাতে আসলে আমার বন্ধুটি বলল, -মা তুমি এটা কি করলা? -কি করলাম? -তোমার হাতে ঐটা কি? -কেন? তোর বই? -কি বই জান? -না। -ঐটা মাস্টার্সের বই। এই বই আমার গুষ্টি, তোমার গুষ্টি জীবনে চোখে দেখে নাই। আর তুমি […]

 তাহমিদুর রহমান

দুটি প্রকাশিত কবিতা

বিজ্ঞাপন আড়িপেতে শুনি স্পন্দন আর ঘ্রানের কম্পনে তন্নতন্ন করে খুঁজি জীবনের স্পৃহা আর জীবিকার সন্ধানে একতারা থেকে আজ বহু বহু দূরে মিনিটের প্রতিটি সেকেন্ড কাটে নিমজ্জিত হতাশায় অন্ধ আজও স্বপ্ন আমার, চিম্বুক পাহাড়ের চূড়ায়। নির্লজ্জ আমি, জানাই নিজেই নিজের বিজ্ঞাপন আজ অন্যের মতই সুযোগ সন্ধানী অশরণ। পাতিত্য একাকিত্বের দুঃস্বপ্ন, অদ্ভুত শব্দ গোধূলী- মদির অন্ধকারে বিষণ্ন […]

 তাহমিদুর রহমান

সায়েন্স ফিকশনঃ জন্মকথা

১ বাইরে কি বৃষ্টি হচ্ছে? এই মধ্যরাতে এক পশলা বৃষ্টি হলে মন্দ হয় না। ভাবে লিয়ান। অনেক্ষন ধরেই সিডি প্লেয়ারে গান শুনছে সে। ঘরে টেবিল ল্যাম্প জ্বলছে ঠিক তার বিছানার কাছে। এই আলোতে বিছানায় শুয়ে থাকতে বেশ মজা লাগে লিয়ানের। আলো আঁধারিতে মন কেমন যেন খেলা খেলে যায়। কিছু না ভেবেই অনেকক্ষন কাটিয়ে দেওয়া যায়। […]

 তাহমিদুর রহমান

সায়েন্স ফিকশন: জিনিয়া

পূর্বকথাঃ ত্রিশ শতাব্দীর দিকে পৃথিবীর অবস্থা খারাপ হতে থাকে। পৃথিবীর বায়ুমন্ডল এতটাই দূষিত হয়ে পড়েছিল যে দিন দিন মানুষের বাসের অযোগ্য হতে থাকে পৃথিবী। সে সময়ে মানুষ ধারনা করেছিল মানুষ হয়ত মঙ্গল গ্রহতে বসতি স্থাপন করতে যাচ্ছে। কিন্তু তা আদৌ সম্ভব হয়নি।ঠিক এ সময়েই গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কারটা করে বসেন জীববিজ্ঞানী রোলেক্স রাইটন।তিনি প্রমাণ করেন যে মানুষের […]

 তাহমিদুর রহমান

ছোটগল্প: ভালবাসার জয় হোক

ঠিক বারটা দশ মিনিটে হাসানের মাথায় বজ্রপাত হল। বজ্রপাতে তার শরীরের মধ্যে দিয়ে ইলেকট্রিসিটি চলে যাওয়ার কথা কিন্তু তার হাত পা ঠান্ডা হয়ে আসছে। সে ঢাকা থেকে কুমিল্লার উদ্দেশ্যে বাসে করে রওনা হয়েছিল এগারটা বিশ মিনিটে। কুমিল্লা এখনো এগার কিমি মত বাকি। এরই মধ্যে বাস নষ্ট হয়ে গিয়েছে। এটাই বাসের শেষ টিপ। তারপর অহনাকে সাথে […]