Home » Entries posted by শৈলী টাইপরাইটার
Entries posted by shoily_type
শৈলী টাইপ-রাইটার অতিথি লেখক অথবা খ্যতিমান কবি সাহিত্যিকদের রচনাসমূহ শৈলীতে পাঠকদের সামনে তুলে ধরার প্রয়াস চালাবে অবিরতভাবে। আড্ডা হোক শুদ্ধতায়, শিল্প আর সাহিত্যে ||

সুস্বাদু ফল ড্রাইভিং ট্যুর ২০১৭,অন্টারিও, কানাডা 

আমি ইচ্ছা করেই সুস্বাদু কথাটি ব্যবহার করেছি যদিও এটি অনুভবের স্বাদ। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে ঝামেলা, স্ট্রেস, দুঃচিন্তা বা অনেক সমস্যা থাকে তাই মাঝে মাঝে একটু সময়ের জন্য হলেও সেগুলিকে এভোয়েড করতে পারলে আগত ঝামেলা বা সমস্যা মোকাবিলা করতে অনেক সুবিধা হয়। আর এ জন্য সব থেকে ভালো পদ্ধতি হলো কিছুটা সময় লাইক-মাইন্ডেড মানুষগুলিকে নিয়ে একটু […]

…. “নওশীন! এই নওশীন!” বাথরুমের কলটা ছাড়া, হয়তো তাই ডাক শুনছে না। তূর্যের ফোনটা বাজছে, আনমনে থাকায় খেয়াল করা হয়নি। না, তূর্যের নয়। নওশীনের ফোন বাজছে। ড্রেসিং টেবিলের ওপর থেকে ফোনটা হাতে তুলে নিলো সে। থেমে থেমে বিপ বিপ আওয়াজ হচ্ছে। তূর্যের কুঞ্চিত ভ্রুর নিচে আলোকিত ফোনের স্ক্রিন। প্রতিদিন কে এত টেক্সট দেয় নওশীনকে? . […]

Continue reading …

হাজার বছর ধরে আমি পথ হাঁটিতেছি পৃথিবীর পথে, সিংহল-সমুদ্র থেকে নিশীথের অন্ধকারে মালয়-সাগরে অনেক ঘুরেছি আমি; বিম্বিসার-অশোকের ধূসর জগতে সেখানে ছিলাম আমি; আরও দূর অন্ধকারে বিদর্ভ নগরে; আমি ক্লান্ত প্রাণ এক, চারিদিকে জীবনের সমুদ্র সফেন, আমারে দু-দন্ড শান্তি দিয়েছিল নাটোরেরবনলতা সেন ।   চুল তার কবেকার অন্ধকার বিদিশার নিশা, মুখ তার শ্রাবস্তীর কারুকার্য; অতিদূর সমুদ্রের […]

Continue reading …

ভবানীপুরের চাটুয্যেরা একান্নবর্তী পরিবার। দুই সহোদর গিরীশ ও হরিশ এবং খুড়তুতো ছোট ভাই রমেশ। পূর্বে ইহাদের পৈতৃক বাটী ও বিষয়-সম্পত্তি রূপনারায়ণ নদের তীরে হাওড়া জেলার ছোট-বিষ্ণুপুর গ্রামে ছিল। তখন গিরীশের পিতা ভবানী চাটুয্যের অবস্থাও ভাল ছিল। কিন্তু, হঠাৎ একসময়ে রূপনারায়ণ এমনি প্রচণ্ড ক্ষুধায় ভবানীর জমি-জায়গা, পুকুর-বাগান গিলিতে শুরু করিলেন যে, বছর পাঁচ-ছয়ের মধ্যে প্রায় কিছুই […]

Continue reading …

মিঠুন চাকমা: প্রতিটি সত্যিকার বিপ্লবই সামাজিক বিপ্লব, কারণ সে নতুন একটি শ্রেনীকে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করে আর সেই শ্রেনীকে তার নিজের ধাঁচে সমাজকে পুনর্গঠিত করার সুযোগ দেয়- ফ্রিডরিখ এঙ্গেলস ফ্রিডরিখ এঙ্গেলস। জার্মান লেখক, দার্শনিক, রাজনৈতিক বিষয়ে তাত্ত্বিক লেখক।সর্বোপরি তিনি এবং কার্ল মার্কস ছিলেন কীর্তিমান দুইজন বন্ধু, যাদের হাত ধরে জন্ম নিয়েছে সর্বহারা তথা দুনিয়ার তাবৎ শ্রমিক […]

Continue reading …

বেশ কয়েকদিনের ছুটি পেয়েছি। ঈদের ছুটি। বেসরকারি চাকুরির জাঁতাকলে পড়ে জীবন পুরোটা তেজপাতা হয়ে গেল। সকালের সূর্যোদয় আর রাতের ঘনকালো অন্ধকার ছাড়া পুরো সপ্তাহে আর কোনকিছুই চোখে পড়েনা। ঢাকাগামী গোধূলী আজ দেড়ঘন্ঠা দেরি করেছে। রাত বারোটা। ঢাকা থেকে গ্রামে পৌঁছুতে পৌছুঁতে কম হলেও দেড়টা-দুটো বাঁজবেই। হুট করে বাড়ি যাচ্ছি, জানিয়ে গেলে অনেক ধরনের উৎটকো সমস্যা। এই […]

Continue reading …

পি.আর.প্ল্যাসিড ——————- এক সময় যখন বেশ আড্ডায় মেতে থাকতাম দেশে কিংবা প্রবাসে, তখন শোনতাম অনেকে অনেক ধরণের বিষয় নিয়ে কথা বলতেন সেই আড্ডায়। আমি কখনো ভালো বক্তা ছিলাম না। শ্রোতা হিসেবে নিজেকে নিজে সেরা না বললেও একজন নীরব শ্রোতা হিসেবে ভালো বলতে পারি নিজেকে নিজে। স্কুল জীবনে আমার বাবাকে একটি কথা সবসময় বলতে শুনেছি, ” […]

Continue reading …

অনেক আগের কথা। তখন আমার বয়স কত হবে এখন আর সঠিক খেয়াল নেই। তবে কাহিনী মনে আছে। প্রচন্ড ঝড়ের মধ্য দিয়ে সাভার গিয়েছিলাম বেড়াতে নৌকায় বিশাল বিল পারি দিয়ে। সাভার গিয়ে সম্পর্কে ভাগিনা হয় তার সাথে এবং তার প্রলোভনে তাদেরই গাছের কাঁঠাল চুরি করে সাভার বাজারে নিয়ে বিক্রি করে সেই টাকা সিনেমা দেখতে গিয়েছিলাম। ছবির […]

Continue reading …

আপাদমস্তক একজন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার। নেশা তার কবুতর পালন। কিন্তু এই নেশাই পরে তার ধ্যাণ-জ্ঞান! নেশা থেকেই পেশায় পরিণত হয়েছে কবুতর পালন যার তিনি হলেন হবিগঞ্জ জেলা থেকে প্রায় ৮০ কিঃমিঃ দূরে নিভৃত পল্লী নাদামপুর গ্রামের আব্দুস সামাদ। দূর গ্রামে থেকেও কবুতর পালনের অত্যাধুনিক তথ্য, নতুন জাতের কবুতরের খবর, চিকিৎসা, কবুতর কেনা বেচার তথ্য তার হাতের […]

Continue reading …

এসএমএ হাসনাতঃ নাম তার বাদশা মিয়া। বয়স ১২ কি ১৩। মনে করতে পারে না। বাবা-মায়ের আট ভাই-বোনের ৩য় সন্তান সে। অনাদরে-অবহেলায় যাচ্ছে দিন হয়ত এই কারণেই। নিজের জীবনে আনন্দ আর সুখ অনুভূতি না থাকলেও সবাইকে মাতিয়ে রাখে সর্বক্ষণ। গানে, অভিনয়ে, ডায়লগবাজিতে সরব। ব্যবসাও জমজমাট। আসর জমলেই বিক্রি-বাট্টা বেশী। চা-ধুমপান কিংবা আড্ডা দিতে আসা মানুষকে যতক্ষণ […]

Continue reading …

সেবার দেশময় রটে গেল যে, তিনটি শিশু বলি না দিলে রূপনারায়ণের উপর রেলের পুল কিছুতেই বাঁধা যাচ্ছে না। দু’টি ছেলেকে জ্যান্ত থামের নীচে পোঁতা হয়ে গেছে, বাকী শুধু একটি। একটি সংগ্রহ হলেই পুল তৈরী হয়ে যায়। শোনা গেল, রেল-কোম্পানির নিযুক্ত ছেলেধরারা শহরে ও গ্রামে ঘুরে বেড়াচ্চে। তারা কখন এবং কোথায় এসে হাজির হবে, কেউ বলতে পারে […]

Continue reading …

পূর্ববঙ্গবাসী কোন বর, কলিকাতানিবাসী একটি কন্যা বিবাহ করিয়া গৃহে লইয়া যান। কন্যাটি পরমাসুন্দরী, বুদ্ধিমতী, বিদ্যাবতী, কর্মিষ্ঠা এবং সুশীলা। তাঁহার পিতা মহা ধনী, নানা রত্নে ভূষিতা করিয়া কন্যাকে শ্বশুরগৃহে পাঠাইলেন। মনে ভাবিলেন, আমার মেয়ের কোন দোষ কেহ বাহির করিতে পারিবে না। সঙ্গের লোক ফিরিয়া আসিলে তিনি জিজ্ঞাসা করিলেন, “কেমন হে, বাঙ্গালেরা মেয়ের কোন দোষ বাহির করিতে […]

Continue reading …
Page 1 of 41234