স্মৃতিরোমন্থন

 নীল নক্ষত্র

বিলাতে বাঙ্গালি উতসব

(বিলাতের আকাশে কাজলের ঘুড্ডি) গত প্রায় একটা বতসর বারমিংহামেই কাটালাম। বারমিংহাম শহরের উত্তরে এক নিভৃত পল্লীর ছোট্ট একটা রাস্তার পাশে ছোট্ট ঘরে। বেশ কেটে যাচ্ছিলো। কোন হৈ চৈ নেই, পাশেই একটা পাব কিন্তু কোন সারা শব্দ পাইনি কোন দিন, অবশ্য পাবই বা কি ভাবে, যখন পাবের বাজনার তালে উত্তাল উচ্ছল মদিরার আবেশে জীবনের শুন্যতা কাটাতে […]

 রিপন কুমার দে

এলোমেলো-ভাবনা: কৈশোর

এলোমেলো-ভাবনা: কৈশোর

ভরা কিশোরবেলা। জৈষ্ঠ্যৈর রোদেলা দুপুর। সবুজ ধানের তপ্ত মেঠো আল দিয়ে চপল পায়ে খামোখাই হেটে বেড়াঁই। ভাবনায় কৈশোরের বাধভাঙ্গা কৌতুহল, অবাধ উচ্ছলতা, সবকিছুতেই অন্যরকম ভাল লাগার অনুভুতি। দিগন্তজোড়া ধুঁ ধুঁ কচি মাঠের আলের মধ্য দিয়ে ছুটে চলা, ছোট্ট অন্নপূর্না পাহাড়ের শুভ্র ঝর্নার পাদদেশ থেকে তৈরি হওয়া আকাঁবাকাঁ ছোট্ট খালের পাড়ে বসে পড়ন্ত বিকেলে বড়শী দিয়ে […]

 নীল নক্ষত্র

সে দিনের ঈদগুলি

ছোট্ট একটু আপডেটঃ জীবনে যে কত দেশের কত শহরে ঈদ করেছি সে অনেকের কাছে বিস্ময় বলে মনে হবে। এর মধ্যে একটা মজার ঘটনা বলি। ঈদের আগের দিন জাহাজ দুবাই এসেছে, গেটের বাইরে এসে দেখি কাছেই ঈদ গাহ। বন্ধুরা সিদ্ধান্ত নিলাম কাল তা হলে এখানে ঈদের নামাজ পড়ব। সকালে উঠে যথারিতী গোসল করে কাপড় চোপর পরে […]

 আজিজুল

হারিয়ে যাওয়া মুখগুলোঃ প্রথম পর্ব

হারিয়ে যাওয়া মুখগুলোঃ প্রথম পর্ব

স্কুলে আমার এক বন্ধু ছিলো, নাম তানভীর। সেদিন সে ছবিঘরে বলল, ‘আজিজ দোস্ত, স্কুলের সবার কথা তোর মনে আছে?’ আমার কিছু মনে নেই। তবু বেশ অভিনয় করে বললাম,’আছে’। সত্যি কথা বলতে কি, স্কুলের অধিকাংশ কথা আমি মনে রাখতে চাইনা। কিন্তু কিছু মুহূর্ত আজও নাড়া দিয়ে যায় অবিরাম। সেইসব স্মরনীয় মুহুর্তের সঙ্গীসাথীদের নিয়ে আজকের নিবেদন- প্রথম […]

 আজিজুল

ভাইয়া

ভাইয়া

আমি যখন ক্যাম্পাসে প্রথম ক্লাস করতে যাই, তখন আমার আশেপাশের সবাই ছিলো আমার চেয়ে বয়সে বড়, আমি তাদের ভাইয়া ডাকতাম। চার বছরের ক্যাম্পাস জীবন অন্যদের চেয়ে আমার বেশ দ্রুতই কেটেছে। অন্যেরা যখন ড্রপ কোসে’র হিসাব করতো, তখন আমি বড় ভাইদের সাথে ক্লাস করে কিভাবে আগে ভাগে ক্যাম্পাস থেকে বিতাড়িত হওয়া যায় তার পায়তারা করা শুরু […]

 আহমেদ মাহির

বিবর্ন পাতা থেকে :: ৩

অমি , অনেককাল তোর সাথে যোগাযোগ নেই । তোর কথা ভীষন মনে পড়ে । হৃদয়ের নিকটে শুধুই তুই রয়ে গেছিস । বাকিরা কেমন ধিরে ধিরে অন্তর্বাষ্পের মতই মিলিয়ে গেছে । ভাগ্যিস ! তুই শৈশবেই আমার হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছিলি । কৈশর কি আমার স্মৃতি না বর্তমান আজও ঠিক বুঝে উঠতে পারি না । আর যৌবন […]

 আজিজুল

অনিমেষ এর চিঠি (সর্বশেষ খন্ড)

অনিমেষ এর চিঠি (সর্বশেষ খন্ড)

দেবী, তোর চিঠি পেলাম-দূর থেকে দেখলামও আজ। মনকে অনেক সান্তনা দেবার ইচ্ছা করছিলো-সম্ভব হলো না। তুইতো আর সামনে এলি না-সম্ভবত আমিও এড়িয়ে গেলাম। পরাজয়ের পর কে চায় সামনে এসে হাত মেলাতে? আমি অবশ্য তোকে দেখছিলাম- ক্যাম্পাসের A বিল্ডিংটার পাশে চায়ের দোকানে বসে। লাইব্রেরীর সামনে দিয়ে সোজা হেটে যাচ্ছিলি-তোর প্রিয় বেগুনী রঙ এর কামিজ আর এককালে […]

 আজিজুল

অনিমেষ এর চিঠিঃ ২য় খন্ড

সময়কালঃ২০০৬ আনিমেশ, তোমার মতন সাহিত্যে পারদর্শি আমি নই। তোমাকে কতবার বলেছি,একটু বুঝার চেষ্টা করো। পাছে,যখন চলে যাবো- নিজেকে সান্তনা দেবার ভাষাটাও খুজে পাবে না তুমি। তবে হ্যা, একটা কথা না বলে পারছিনে। তোমার শাওন বান্ধবী আসলে কি মতলবে আমার মোবাইল থেকে তোমাকে মিসকল দিয়েছিলো-তা অজানা। তবু,জানা অংশ থেকে লিখছি, ওই দিন যদি তুমি মিসকল ব্যাক […]

 আজিজুল

অনিমেষ এর চিঠি : প্রথম খন্ড

আমাদের এসময়ের ব্যার্থ যুবক আনিমেষ এর কথা দিয়েই শুরু করা যাক। ওর একটা ডায়েরীর পাতা থেকে লাইনটা তুলে দিলাম- দেবীকে উদ্দেশ্য করে লিখা প্রেমপত্রঃ ১৬-১১-২০০৫ “…আজ রাত কাটিয়ে দিবো তুমি আমি আর জোসনায় । জেগে উঠছে লুকিয়ে থাকা অন্ধকার গুলো। তবুও ব্যর্থতার রজনী ভালোবাসার কাছে পরাস্থ!” রবি বাবু একটা ভীষন ভালোলাগা অনুবাদ করেছিলেন শেষের কবিতায়। […]

 আজিজুল

শুভাশিষ

খুব আনন্দঘন মূহুতে’ মানুষের অনেক কিছুই করতে ইচ্ছে করে। আমি সাইন্টিস্ট মানুষ। অন্তত বিজ্ঞান বুঝবার অভিপ্রাস জ্ঞাপন করি। ইদানিং কবিতা ও ছোট গল্পে ছেদ পড়েছে। নিজের  লিখা সাহিত্যকম’ পড়ে হাতড়াচ্ছিলাম কিভাবে আবারো নব নবরুপে লিখা যায়। আশরাফুল প্রতি বলে একই ভাবে ছক্কা পিটালে বাহবা পড়েবে সত্য কিন্তু আজিজূল একই রকমের, একই স্বাদের কবিতা লিখলে মানুষ […]

 রিপন কুমার দে

ইউনিভার্সিটিতে একদিন (ছবিব্লগ)

ইউনিভার্সিটিতে একদিন (ছবিব্লগ)

কাল একটি পার্টি ছিল। নিজেরই আয়োজন ছিল। তাই ধকল গেল অনেক। এখনও ক্লান্তি বোধ হচ্ছে। ইউনিভার্সিটি থেকে ফিরে ফ্রেশ হয়ে বসে আছি। জানালার ধারে আসলাম। জানালার একটা ডালা খোলা। তাই শীত শীত করছিল বেশ। বন্ধ করতে গিয়ে দেখি বাইরে কি সুন্দর স্নো পড়ছে। ইস্, এই ব্যাপারটা এত ভাল লাগে দেখতে! এই দেশে যদি ভাল লাগার […]

 রিপন কুমার দে

বাল্যবেলার পাঠ্যপ্রীতি

বাল্যবেলায় আর সবার মত আমারও কোনরকম পঠনপ্রীতি ছিল না। থাকার কোন যৌক্তিকতাও নেই। বরং অল্প আচেঁ (শর্টকার্ট ওয়ে) কিভাবে এই বৈতরনী পার করে ফেলা যায় এ নিয়ে থাকত দিনভর নানাবিধ “৩০ দিনে ইংরেজী শেখা” টাইপ পালাবদল পরিকল্পনা। এতে বন্ধুসমীপেষু মুমিতের স্বেচ্ছাচারী সহযোগীতা ছিল ঝেড়ে কৃতজ্ঞতা জানানোর মত সবর্দা প্রত্যাশিত। পড়াশোনার মত বোরিং একটা ব্যাপারকে কিভাবে […]